মডেল পিয়ার ভিডিও ফাঁস (ভিডিও)

Spread the love

মডেল, উপস্থাপক, আইনজীবী ও ব্যবসায়ী। সব পরিচয় একজনার। তিনি পিয়া। উপস্থাপনা, নতুন ব্যবসা নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত তিনি। পিয়া আন্তর্জাতিক পরিসরেও মডেলিং করেছেন সমান তালে। সব সময় আলোচনা-সমালোচনার কেন্দ্রে থাকেন এই তারকা। আর এভাবেই তিনি এগিয়ে চলছেন। নতুন করে আবারও আলোচনায় উঠে আসলেন তিনি। তার একটি ভিডিও ফাঁস হয়েছে সম্প্রতি। যা সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছে প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে। যে ভিডিওতে পিয়াকে দেখা গেছে নেশা করতে। তাতে শিসার পাইপ। আর তা দিয়ে একভাবে ধুয়া উড়াচ্ছেন এই মডেল।

পিয়া তার ক্যারিয়ার নিয়ে খুব ব্যস্ত সময় কাটছেন। পিয়ার কোনো কিছু নিয়েই লুকোচুরি নেই। সোজাসাপ্টা কথা, খোলামেলা পোশাক নিয়ে তাঁকে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল। কিন্তু ‘পাছে লোকে কিছু বলে’—তা আগেও পাত্তা দেননি, এখনো দেন না।

পিয়া নিজেও মনে করেন, বয়স ত্রিশ হওয়ার আগে তিনি যা যা করতে চেয়েছেন, সেগুলো সফলতার সঙ্গে করতে পেরেছেন। আক্ষেপ শুধু সিনেমায় কাজ করা নিয়ে, মনে করেন, যতটা ভালো করার কথা ছিল, ততটা করতে পারেননি।

তিনি বলেন, ‘মাঝেমধ্যে মনে হয় আমি মডেল না হয়ে অন্য কিছু হলে আরও বেশি ভালো করতাম। কিন্তু সবচেয়ে কাছের মানুষ আমার স্বামী ফারুক হাসান প্রায়ই বলেন, “তুমি মডেলিং বেছে নাওনি। মডেলিং তোমাকে বেছে নিয়েছে।”

উচ্চতা, ছিপছিপে শারীরিক গঠন, মসৃণ ত্বক, দিঘল কালো চুল—একজন মডেলের যা সবচেয়ে প্রয়োজন, সবই তার আছে। আর বাংলাদেশে এমন দীর্ঘ উচ্চতার মেয়ের দেখা তো সচরাচর মেলে না। এই উচ্চতাই তাকে মাত্র ১৬ বছর বয়সে ঢাকায় আসতে বাধ্য করেছিল। আর এটাই তার জন্য শাপেবর হয়েছিল।

যদিও উচ্চতার জন্য অনেক ব্যঙ্গ সহ্য করতে হয়েছিল তাঁকে। খুলনায় সে সময় এত লম্বা মেয়ে ছিল না। নেতিবাচক কথায় মন ভেঙে যাওয়ায় তাঁর মা এসএসসি পরীক্ষার পর ২০০০ সালে পিয়াকে ঢাকায় রেখে যান। পরিবারের অন্যরা ‘উচ্ছন্নে যাওয়া’ মেয়ের সঙ্গে কথা বলতেন না। মা-ই একমাত্র পিয়াকে সমর্থন করেছিলেন।

জীবনের এই সময়ে এসে পিয়া বলেন, ‘পরিবারে শান্তি ও সমর্থন থাকলে নির্বিঘ্নে কাজ করা যায়। বিয়ের পর স্বামী খুব সমর্থন দেন আমাকে। তাই শুধু এগিয়ে চলছি…।’