মিশন শুরু : মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ মিথ্যা তথ্য দিলে জরিমানা ১০ লাখ

Spread the love

শুরু হলো মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় আয়োজন। গতকাল ১৬ সেপ্টেম্বর সকাল থেকে রাজধানীর বিএফডিসিতে শুরু হয়েছে অডিশন রাউন্ড। সেখানে অংশ নেয় দেশের সব সুন্দরী তরুণীরা।

এবারের আসরে বিচারক হিসেবে আছেন কণ্ঠশিল্পী শুভ্রদেব, অভিনেত্রী তারিন, মডেল খালেদ সুজন, ইমি ও ব্যারিস্টার ফারাবী। অডিশন রাউন্ড থেকে পুরো প্রতিযোগিতায় তারাই বিচারকার্য পরিচালনা করবেন। তবে গ্র্যান্ড ফিনালেতে তাদের সঙ্গে আইকন বিচারকরা যোগ দেবেন।
আয়োজক স্বপন চৌধুরী জানান, অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যেই মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশের চূড়ান্ত বিজয়ী ৭ ডিসেম্বর চীনে মূলপর্বে যোগদানের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

প্রসঙ্গত, নিয়ম অনুযায়ী মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় বিবাহিতা কিংবা সন্তানের মা হয়েছেন এমন কেউ অংশ নিতে পারবেন না। কিন্তু গত বছর এমন নিয়মের বিপরীতে সব বাধা অতিক্রম করে শীর্ষে পৌঁছে যান জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল। মুকুটও পরেন তিনি। যদিও সেই মুকুট স্থায়ী হয়নি। সমালোচিত হয়েছিলেন এভ্রিল। পরে এভ্রিলকে বাদ দিয়ে আয়োজনের প্রথম রানারআপ জেসিয়া ইসলামকে বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতায় পাঠানো হয়।

বিষয়টি ছিল বাংলাদেশের জন্য বেশ বিব্রতকর। মূলত সেই অভিজ্ঞতা থেকে এবার বেশ নড়েচড়ে বসেছেন আয়োজকরা। জানিয়েছেন, কোনও প্রতিযোগী এমন কোনও ভুল/মিথ্যা তথ্য দিলে তাকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হবে।
এ প্রসঙ্গে অন্তর শোবিজের চেয়ারম্যান স্বপন চৌধুরী বলেন, ‘গতবার আমরা বেশ বিপদেই পড়েছিলাম। বিশ্ব মঞ্চে কাউকে নিয়ে যাওয়ার জন্য এমন ঘটনা বেশ বিপজ্জনকও বটে। তাই এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি চাই না।’

তিনি আরও বলেন, ‘এবার কোনও প্রতিযোগী যদি মিথ্যা তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করেন এবং সেটি ধরা পড়ে তবে আমরা তাকে ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রেখেছি। পাশাপাশি অডিশনের আগে ও পরে আমাদের বড় একটি টিম এবং বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে তথ্য যাচাই-বাছাই করছি। আশা করছি এবার আর এমন কিছু ঘটবে না। কারণ, ভুল থেকেই মানুষ শিক্ষা নেয়।’