দুই বাংলার তারকাদের লড়াইয়ে কে জিতবে…?

Spread the love

আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে প্রচার শুরু হচ্ছে ‘বাজলো ঝুমুর তারার নূপুর’ অনুষ্ঠানটি।

বাংলাদেশ ও কলকাতার টেলিভিশন-চলচ্চিত্র শিল্পীদের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করতে ও উভয় বাংলার সংস্কৃতির ঐতিহ্যের ধারা দুই বাংলার টেলিভিশন দর্শকদের মাঝে তুলে ধরার জন্যই এমন আয়োজন বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

‘বাজলো ঝুমুর তারার নূপুর’-এর মূল প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ এবং ভারত থেকে অংশগ্রহণ করেছেন ছয় জন করে মোট বারোজন তারকা। বাংলাদেশ থেকে যোগ দিয়েছেন টিভি অভিনেত্রী ঈশানা, ভাবনা, জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া, স্পর্শিয়া, অমৃতা ও সাফা কবির। আর কলকাতা থেকে রিমঝিম, সোহিনী, এনা সাহা, লাভলী, তিথি ও প্রীতি।

এই রিয়েলিটি শোয়ে আরও প্রতিযোগিতা করেছেন বাংলাদেশ থেকে চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি, টিভি অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভা ও জাকিয়া বারী মম। আর কলকাতা থেকে অংশ নিয়েছেন জি বাংলার ‘রাশি’ সিরিয়ালের প্রধান চরিত্র গিতশ্রী, চিত্রনায়কা পায়েল ও টিভি অীভনেত্রী ঋতুপর্ণা।

প্রতিটি পর্বে প্রধান বিচারক হিসেবে আছেন বাংলাদেশের নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন এবং কলকাতার নায়িকা শতাব্দী রায়।
বিভিন্ন পর্বে বাংলাদেশ থেকে অতিথি বিচারক হিসেবে যুক্ত হয়েছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী, চিত্রনায়ক ফেরদৗস, সংগীতশিল্পী আঁখি আলমগীর, অভিনেতা তৌকীর আহমেদ ও সজল। অপরদিকে কলকাতা থেকে সংগীতশিল্পী জোজো, অনিন্ধ, শ্রীলেখা মিত্র এবং নৃত্যবিশারদ তনুশ্রী শংকর।

‘বাজলো ঝুমুর তারার নূপুর’-এর প্রতিটি পর্ব যৌথভাবে উপস্থাপনা করেছেন কলকাতার সৌরভ এবং বাংলাদেশের মাসুমা রহমান নাবিলা।

মোট ৭২টি এপিসোডে এই অনুষ্ঠান ধারন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানটি সম্পর্কে নাগরিক টিভির অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান কামরুজ্জামান বাবু বলেন, ‘প্রায় তিন বছর ধরে অনুষ্ঠানটি নিয়ে নানা রকম গবেষণা ও যোগাযোগের কাজ করা হয়েছে।

প্রতিযোগিতামূলক বিশেষ এই অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকতায় যুক্ত আছে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড। পাওয়ার্ড বাই সোহানা ইলেকট্রনিক্স। আর সহযোগিতায় আছে মমতাজ হারবাল লিমিটেড।