দহন-এ সিয়ামের আপত্তিকর কথা- ’মাতাল হয়ে হিসু করব দেয়ালে’

Spread the love

মাতাল হয়ে হিসু করব দেয়ালে, শালা যা হবে দেখা যাবে কাল সকালে…’ ‘কিংবা গাঁজা দেরে টানি, চলবে নেশা জমবে খেলা…’ এসব মজা করে বলা কোনো বাক্য নয়, এটা সিয়াম আহমেদ অভিনীত দহন চলচ্চিত্রের গান এটি। এই গানে ব্যবহৃত অনেক শব্দকে আপত্তিকর হিসেবে উল্লেখ করেছেন ভক্তরা। যা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় চলছে রীতিমতো আলোচনা-সমালোচনা।

সিয়াম বলেন, ‘গানটিতে অন্য এক সিয়ামকে দেখতে পাবেন পাচ্ছেন দর্শক। মজার বিষয় হচ্ছে এই গানের মাধ্যমে প্রথমবার নিজের কন্ঠে র‌্যাপ অংশটুকু গেয়েছি। একটা মাতাল ছেলে কি করে এ গানে তাই দেখানো হয়েছে। গানটি সবার ভালো লাগবে আমার বিশ্বাস।’

‘দহন’ সিনেমাটি নির্মাণ করছেন রায়হান রাফি। এতে সিয়ামের বিপরীতে অভিনয় করছেন পুজা চেরি। এছাড়াও এতে অভিনয় করছেন জাকিয়া বারী মম, মনিরা মিঠু, রাজ রীপা প্রমুখ।

‘বাবা খেয়ে, হাবা হয়ে…’ এই ধরনের শব্দ ব্যবহার করায় নেটিজনরা বলছে তরুণ সমাজকে উস্কে দেয়ার গান এটি। একজন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী বলছেন, ‘গাঁজা, বাবা এইসব গানের মধ্যে দিয়ে যুবকদের উস্কানি দেওয়া হচ্ছে।’

একই ধরনের মন্তব্য করেছেন আরেক নেটিজেন। তিনি বলছেন, এই গান ব্যান করা উচিত। গাঁজা খাওয়ার জন্য বলতেছে, মদ খাওয়ার জন্য বলতে, এই গান থেকে কিছু শেখার আছে নাকি?এই গানের কথা গুলো সমাজ কে ধ্বংস করবে।’

শামসুল ইসলাম নামের একজন লিখেছেন, ‘গাঁজা খা‌বে, মাতাল হ‌য়ে হিসু দে‌বে। এই প্রজ‌ন্মের ছে‌লে মে‌য়েরা যখন এই গান‌টি গাই‌বে। এই গান‌টি তা‌দের ম‌নে প্রভাব পড়‌বে না? তখন গা‌নের তা‌লে তা‌লে তারা মাতাল হ‌তে চাইবে, ‌হিসু দে‌বে, বলা যায় না মলত্যাগও কর‌তে পা‌রে যেথায় সেথায়। এতে কি ভালো কিছু হ‌বে? গান সুন্দর হ‌য়ে গেল আর ডান্স সুন্দর হ‌য়ে গে‌লেই আস‌লে ভাল কিছু হ‌য়ে যায়? মাতাল প্রজন্ম সৃ‌ষ্টি কর‌বেন না প্লিজ।’

ঘুরে ফিরে একই কথা সছে, ‘বাবা, গাজা, মাল, মাতাল! তরুণ প্রজন্মকে ভালোই অনুপ্রেরণা দিচ্ছেন! সেন্সর বোর্ড থেকে এই কথাগুলো বাদ দেওয়া উচিত।’ মন্তব্য একজন নেটিজেনের।

আরেকজন বলছেন, ‘দহন ছবির প্রথম গানের লিরিক্স নিয়ে অনেকেই নেগেটিভ কিছু ভাবছেন। তাদের কিছু বলি- সিয়াম ভাইয়া সিনেমাতে নেশাখোর থাকে। গল্পের সাথে মিল রেখেই গানটা করা হয়েছে। মাতাল, বাবা, হিসু, মদ এসব শব্দ স্বাভাবিক মানুষ ব্যবহার করবেনা, সিনেমা দেখলেই সব বুঝতে পারবেন।’

গানে কলকাতার টান লুকানো সম্ভব হয়নি। শ্রোতারা তাই এটাকে কলকাতার ফ্লেভারের গান হিসেবেও উল্লেখ করছেন। অবশ্য গানের কথা, সুর, কণ্ঠ সবকিছুই কলকাতার। গানের কথা লিখেছেন প্রিয় চট্টোপাধ্যায়। গেয়েছেন আকাশ সেন, সঙ্গীতও তিনি করেছেন।