আবারও চলচ্চিত্রে ফিরতে চান তামান্না..

Spread the love

ঢালিউডের সুইডেন প্রবাসী নায়িকা তামান্না। পেশায় একজন চিকিৎসক। চলচ্চিত্রের প্রতি ভালোবাসা শৈশব থেকেই। মনে মনে স্বপ্ন দেখতেন রূপালী পর্দার নায়িকা হওয়ার । মাত্র পাঁচ বছর বয়সে বাবা-মায়ের হাত ধরে পাড়ি দেন সুইডেন। সেখানেই পড়াশোনা আর বড় হয়ে উঠা । পড়াশোনা শেষ করে ডেন্টিস্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ে তোলার চেয়ে চলচ্চিত্রের প্রতিই তার ছিল বেশি ঝোঁক। সেই ঝোঁক থেকেই ঢাকা বেড়াতে এসে যুক্ত হন ঢালিউডে। এটা সেই ২০০১ সালের কথা। এরপর বেশ কয়েকবার ‘বাংলাদেশ টু সুইডেন’ করার ফাঁকে ফাঁকেই ঢালিউডের বেশ কয়েকটি ছবিতে নায়িকা হয়ে অভিনয় করেছেন তামান্না।

আবারো চলচ্চিত্রে ফেরার ইচ্ছে প্রকাশ করছেন সুইডেন প্রবাসী নায়িকা তামান্না। প্রয়াত শহীদুল ইসলাম খোকন পরিচালিত ‘ভণ্ড’ ছবিখ্যাত এ চিত্রনায়িকা নিজেকে মানসিকভাবে যেমন পরিবর্তন করেছেন ঠিক তেমনি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য নিজেকে প্রস্তুতও করেছেন।

তামান্না বলেন, দেখতে দেখতে জীবন থেকে কীভাবে যেন রোবটের মতো ২০টি বছর পেরিয়ে গেছে। এই ২০ বছর আমাকে কেউ যেন কন্ট্রোল করছিল। আমি রোবটের মতো শুধু নির্দেশনাই শুনছিলাম। আমি এতটাই বোকা এবং আবেগী ছিলাম যে নিয়ন্ত্রিত হয়ে জীবনযাপন করছি তা বুঝতে পারিনি। কিন্তু এই সময়ে এসে তা আমি উপলব্ধি করছি। আর তাই আমার ফেলে আসা চলচ্চিত্র জীবনে আবার ফিরে যেতে চাচ্ছি।

প্রসঙ্গগত, চলচ্চিত্রে তামান্নার অভিষেক হয়েছিল সাইফুল আযম কাশেমের ‘ত্যাজ্যপুত্র’ ছবিতে বাপ্পারাজের বিপরীতে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে। এতে কাজ করার মাঝেই শহীদুল আলম খোকন পরিচলিত ‘ভন্ড’ ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ আসে। ‘ভন্ড’ ছবিটিই তামান্না অভিনীত প্রথম মুক্তি পাওয়া ছবি। তার করা কিছু উল্লেখযোগ্য ছিনামা হলো ‘হৃদয়ে লেখা নাম’, ‘তুমি আমার ভালোবাসা’, ‘কঠিন শাস্তি’, ‘আমার প্রতিজ্ঞা’, ‘চাই শুধু ভালোবাসা’, ‘অশান্তির আগুন’, ‘সন্ত্রাসী বন্ধু’ প্রভৃতি। তামান্না অভিনীত বেশিরভাগ ছবিই বানিজ্যিক সাফল্যের মুখ দেখে।