অভিনেতা কে এস ফিরোজ আর নেই

Spread the love

টিভি পর্দার পরিচিত মুখ, অভিনেতা কে এস ফিরোজ আর নেই। বুধবার সকাল ৬টা ২০ মিনিটে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি (ইন্না-লিল্লাহ….. রাজিউন)।

মৃত্যুকালে এই অভিনেতা স্ত্রী ও তিন মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার মৃত্যুর বিষয়টি জানিয়েছেন নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘আমার অনেক নাটকেই এই গুণী শিল্পী অভিনয় করেছেন। সকাল বেলাই এমন দুঃসংবাদ মেনে নিতে পারছি না।’

এদিকে, রাজধানীর বনানীতে সামরিক কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বরেণ্য এ অভিনেতা। বুধবার দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে তার দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

এর আগে, সামরিক কবরস্থানের মসজিদে বাদ জোহর তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। কে এস ফিরোজ করোনা আক্রান্ত থাকায়, তার দাফনে খুব বেশি মানুষের সমাগম করতে দেওয়া হয়নি।

বরেণ্য এই অভিনেতার দাফনের সময়ে উপস্থিত ছিলেন- অভিনেতা আহসানুল হক মিনু, অভিনেতা আহসান হাবীব নাসিম, নাট্যপ্রযোজক সাজু মুনতাসির, নাট্যনির্দেশক নরেশ ভূঁইয়াসহ বেশ কয়েকজন থিয়েটারকর্মী।

প্রসঙ্গত, বাংলা নাটকের পাশাপাশি সিনেমাতেও ফিরোজের উপস্থিতি উল্লেখযোগ্য। তবে তার শুরুটা হয়েছিল মঞ্চনাটক দিয়ে। নাট্যদল ‘থিয়েটার’-এর সাথে সম্পৃক্ত হয়ে অভিনয় শুরু করেন তিনি। কাজ করেছেন ‘সাত ঘাটের কানাকড়ি’, কিংলিয়ার’ ও ‘রাক্ষসী’ মঞ্চনাটকে।

কে এস ফিরোজ টেলিভিশনে প্রথম অভিনয় করেন ‘দীপ তবুও জ্বলে’ নাটকে। এতে তার বিপরীতে ছিলেন ডলি ইব্রাহীম।

বরিশালে জন্ম নেওয়া এই অভিনেতা ১৯৬৭ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে কমিশন পদে চাকরি পান। ১৯৭৭ সালে মেজর পদে চাকরি থেকে অব্যাহতি নেন। কে এস ফিরোজের প্রথম সিনেমা ‘লাওয়ারিশ’। আরও অভিনয় করেছেন ‘শঙ্খনাদ’, ‘ বাঁশি’, ‘চন্দ্রগ্রহণ’ ও ‘বৃহন্নলা’তে।